হ্যালো জাতি!

হ্যালো জাতি,-যে স্মৃতিসৌধে গিয়ে ফুলের পাহাড় জমাও সেটার স্থপতি যে প্রায় বিনা চিকিৎসায় মানসিক রোগ, হৃদরোগ আর অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসে ভূগে ২০১৪ সালে মরে গেছেন জান তো?-এই সৌধ উদ্বোধনের দিন তাকে আমন্ত্রণই করা হয়নি ! সাধারনেরকাতারে দাড়িয়ে দেখতে হয়েছিল নিজের নকশা করা সৌধ !

এটা জান তো?
-এই সৌধের কোথাও তার নামটি লেখা হয়নি, এটা নিশ্চয় জান? আমি যতদূর জানি ২০০৬ সাল পর্যন্ত এমন কোন ফলক লেখা হয়নি। অথচ এই স্ট্যাটাসটি যেখানে বসে লিখছি তার সামনেই এক সরকারী কর্মকর্তার বাসার গেটেও প্রস্তরফলক লাগানো আছে !

-স্থপতির নাম যেন কেউ মনে না রাখে তাই পত্রিকায় ইচ্ছা করেতার নাম ভুল লেখা হয়েছিল ! তাকে খুন করার হুমকি দেয়া হয়েছিল !-নকশার সম্মানী বাবদ ২ লাখ টাকা পাওয়ার কথা ছিল, তার আয়কর ধরা হয়েছিল ৫০ শতাংশ, মানে ১ লাখ।

পরে রাজস্ব বোর্ডের কমিশনার ধরে-টরে ২০ হাজার টাকা আয়কর দিয়েছিলেন। এই ছিল রাষ্ট্রের সম্মানীর মান?-বাই দ্যা ওয়ে, তার নাম জান তো?কেন এদেশ এখন মেধাপাচারে আক্রান্ত তার উত্তর এই রাষ্ট্রেরঅতীত আচরনেই খুঁজে পাবে। যেদেশ তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের মূল্যায়ন করেনা সেদেশের মতন দূর্ভাগা দেশ আর হতে পারেনা।


Previous Post
Next Post