ঢাকাই বিক্রি হচ্ছে ছেলেদের লিঙ্গ ! বেশি কিনতেছে স্কুল কলেজের মেয়েরা !!


প্রযুক্তির কারনে বদলে যাচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রা – এমন কি তাদের একান্তই ব্যক্তিগত জীবন। ধীরে ধীরে আধুনিক মানুষের জীবনে প্রবেশ করে গেছে সেক্স ডল। এবং বদলে যাচ্ছে সম্পর্কের ধরন। তবে ভাবনার বিষয়টি হলো, এই সেক্স পুতুলগুলো ধীরে ধীরে এতটাই জীবন্ত হয়ে উঠছে যে, মানুষ সেগুলোর প্রতি যথেষ্ঠ পরিমাণে আকৃষ্ট হয়ে উঠছে, বিশেষ করে উন্নত বিশ্বের মানুষের কাছে।

উপরের ছবিটি দেখলেই কেউ বুঝতে পারবেন, এটা কতটা জীবন্ত একটি সেক্স পুতুল। অনেকেই প্রথমে ভাবতে পারেন, হয়তো কোনও সুপার মডেল। কিন্তু এত সুন্দর করে তৈরী করা সেক্স পুতুলগুলো এখন মানুষের ঘরে প্রবেশ করে যাচ্ছে। সেক্স পুতুলগুলো প্রধানত তৈরী করা হতো একধরনের ভিনাইল বা ল্যাটেক্স দিয়ে।

কিন্তু বর্তমান সময়ের যে উন্নত ধরনের সেক্স পুতুল বাজারে আসতে শুরু করেছে তার মূল উদ্যোক্তা হলেন শিল্পী ম্যাট ম্যাকমুলান। তিনি একজন ভাস্কর। তিনি গবেষণা শুরু করে সিলিকন দিয়ে এই ধরনের লাইফ সাইজ পুতুল বানাতে শুরু করেন। তারপর তিনি তার ওয়েসাইটে প্রকাশ করেন। তারপর এর চাহিদা এতো বেড়ে যায় যে, তিনি পুতুলগুলোকে মানুষের এনাটমীর মতো সঠিকভাবে তৈরী করতে শুরু করেন।

সময়ের সাথে চাহিদা আরো বেড়ে যায়। এবং সাথে সাথে এর নৈপূণ্য আরো কারুকার্যময় হয়ে উঠে। বর্তমানে একজন গ্রাহক তার নিজের চাহিদার মতো অর্ডার দিতে পারেন, যেখানে গায়ের রঙ, চুলের রঙ, স্টাইল ইত্যাদি বলে দেয়া যায়।

News Copy by -- ©Prothom Barta
Previous
Next Post »